সরকার পতনে জাতীয় ঐক্য গড়ে গণবিপ্লব বা ভোট বিপ্লব চান বিএনপির নেতারা

গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় জাতীয় ঐক্য সৃষ্টির কথা বলেছেন বিএনপির নেতারা। তাঁরা বলেছেন, সর্বদলীয় জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করে হয় গণবিপ্লব অথবা ভোট বিপ্লবের মাধ্যমে এই সরকারের পতন ঘটাতে হবে।

ঢাকায় পৃথক তিনটি অনুষ্ঠানে আজ শনিবার বিএনপির তিন জ্যেষ্ঠ নেতা খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মওদুদ আহমদ ও নজরুল ইসলাম খান এসব কথা বলেন।
সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ মানবাধিকার পরিষদের আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বলেন, সর্বদলীয় জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করে গণবিস্ফোরণের মাধ্যমে এই সরকারের পতন ঘটাতে হবে। তিনি বলেন, ‘যদি আমরা বাঁচতে চাই, যদি আমাদের গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে আনতে চাই, যদি দেশে সভ্যতা ফিরিয়ে আনতে চাই, তাহলে আমাদের হাতে আর কোনো বিকল্প নেই।’
খালেদা জিয়ার কারামুক্তি না হওয়ার জন্য নিম্ন আদালতের বিচারকদের দোষারোপ করেন মওদুদ আহমদ। তিনি কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা-মামলার নিন্দা জানান। মওদুদ বলেন, ‘১০০টা সরকারি চাকরির নিয়োগের মধ্যে ৫৬টি যদি কোটায় চলে যায়, তাহলে থাকে কী? প্রধানমন্ত্রী সংসদে দাঁড়িয়ে বলেছিলেন, কোটা পদ্ধতি বাতিল করা হবে। আমরা শুনে তাঁর প্রশংসা করেছিলাম। কিন্তু ২৭ জুন তিনি আবার একই সংসদে দাঁড়িয়ে বলেন, কোটা পদ্ধতি থাকবে। আমরা কীভাবে তাঁর কথা বিশ্বাস করব?’

বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে খেলাফত মজলিসের আলোচনা সভায় খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, এই স্বৈরাচারকে সরাতে হলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে হয় গণবিপ্লব অথবা ভোট বিপ্লবের মাধ্যমে জনগণকে মুক্ত করতে হবে। সে জন্য জনগণকে সঙ্গে নিয়ে দেশে সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। এটা করতে হলে গণতান্ত্রিক বিপ্লবী মূল্যবোধ ও জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।
মোশাররফ বলেন, ‘গণ-আন্দোলনে মাধ্যমে বর্তমান সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করা হবে এবং নির্বাচনের জন্য যে পরিবেশ প্রয়োজন, সেই দাবি মানতে বাধ্য করা হবে। আর এই দাবিগুলো আদায় করে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আমরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করব।’

এদিকে সকালে নয়াপল্টনের ভাসানী মিলনায়তনে মহিলা দলের উত্তরের বাড্ডা ও হাতিরঝিল থানার কর্মী সমাবেশে বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। তিনি বলেন, ‘আমাদের জন্য গণ-আন্দোলন ও গণ-অভ্যুত্থান অপেক্ষা করছে। আমাদের বিজয় নিশ্চিত করতে হবে। বিএনপির স্থায়ী কমিটিতে কোনো বিভেদ নেই, আমরা একসঙ্গে বসে আলোচনার মাধ্যমে কাজ করছি। আপনারাও (মহিলা দল) একসঙ্গে থেকে সিদ্ধান্ত নেবেন।’
নজরুল ইসলাম বলেন, খালেদা জিয়াকে ছাড়া নির্বাচনে অংশ নিলে জনগণের কাছে প্রশ্নের জবাব দিতে দিতেই জান বের হয়ে যাবে। তিনি আওয়ামী লীগের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, ‘আজকে কেউ কেউ বলার চেষ্টা করে বিএনপির জন্ম হয়েছে ক্যান্টনমেন্টে। আমার প্রশ্ন হলো, ক্যান্টনমেন্ট কি কোনো নিষিদ্ধ জায়গা? ভুলে যাবেন না, আওয়ামী লীগের জন্ম হয়েছে রোজ গার্ডেনে, যেখানে নতর্কীরা নাচানাচি করত।’

Comments..
sidebar
আগের সংবাদ
পরের সংবাদ