তারেক রহমানের সঙ্গে আঁতাত

বেসিসের মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্নকে ধূলিসাৎ করার ষড়যন্ত্র করছেন ফাহিম মাশরুর

 

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস, সংক্ষেপে বেসিসের নির্বাচন। আর এই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন কট্টর বিএনপিপন্থী ফাহিম মাশরুর। যিনি তারেক রহমানের সঙ্গে আঁতাত করে বাংলাদেশের ডিজিটাল কম্পিউটার সেক্টর ধ্বংস করে দেবার পায়তারা করছেন।

এ প্রসঙ্গে বেসিসের এক সদস্য বলেন, ফাহিম মাশরুর ভাইয়ের ফেসবুক প্রোফাইলে গেলে সরকারের বদনাম ছাড়া আর কিছুই পাওয়া যায় না। তিনি কট্টর বিএনপির সার্পোটার তাতে কোনো সন্দেহ নেই। তবে বলে রাখা ভালো বদনাম করতেও যোগ্যতা লাগে। যেখানে ২০০৬ সালে ফাহিম মাশরুর ট্রেজারার থাকা অবস্থায় বেসিসের অ্যাকাউন্টে ১৪ লাখ টাকার হিসাব গড় মিলের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। এমনকি বিষয়টি আড়াল করতে ফাহিম মাশরুর তৎকালীন অ্যাকাউন্ট অফিসার নুরুজ্জামানের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের মামলা করেন। কিন্তু ট্রেজারারের স্বাক্ষরে বেসিসের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট পরিচালিত হতো বলে আদালত নুরুজ্জামানকে এ মামলা থেকে খালাস দেন। খালাস পাবার পর নুরুজ্জামান ফাহিম মাশরুরকে আসামি করে আরেকটি মামলা দায়ের করেন, যা এখনো বিচারাধীন।

খবর উঠেছে, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে সর্বদা যোগাযোগ করছেন ফাহিম মাশরুর। মূলত তারেক রহমানের উদ্দেশ্য হাসিল করতেই তিনি নির্বাচন করছেন বলে জানায় বেসিসের একাধিক সদস্য। এ প্রসঙ্গে ফাহিমপন্থী ঘনিষ্ঠ এক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বললে তিনি বলেন, মাশরুর ভাইয়ের বয়স হয়েছে, বেসিস এ্যাসোসিয়েট ক্যাটাগরি নির্বাচন করার বয়স তিনি পার করেছেন। কিন্তু তবুও তিনি এই পোস্টে নির্বাচনে যাচ্ছেন অপরদিকে তিনি নিজেও একটি প্যানেল দিয়েছেন। এছাড়াও তার ঘনিষ্ঠ কয়েকজনকে বাকী দুইটি প্যানেলে প্রার্থী করিয়েছেন। শুধু মাত্র তারেক রহমানের উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য। তারেক রহমান চান ফাহিম মাশরুরকে দিয়ে বেসিস দখল করতে সঙ্গে বেসিস বোর্ডকে দিয়ে ডিজিটাল বাংলাদেশ ও আইসিটি সেক্টরের অভ্যন্তরের সব খবরা সংগ্রহ করতে। আর উক্ত তথ্যগুলো তারেক রহমান আন্তর্জাতিক মহলে পাচার করে ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন অধরা করারও চক্রান্ত করছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেসিসের অন্য এক সদস্য বলেন, অর্থ কেলেঙ্কারির মতো ঘটনায় পদত্যাগ করতে বাধ্য হওয়া একজন বিতর্কিত ব্যাক্তির হাতে বেসিসের নেতৃত্ব তুলে দেয়া যায় না। সব ফাঁক-ফোকর জানা আছে এমন ব্যাক্তির হাতে ফের বেসিস নেতৃত্ব গেলে তা পুরো আইসিটি সেক্টরের জন্যই হুমকি। যেখানে বঙ্গবন্ধুর দেশে আমরা ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখছি সেখানে বিএনপি সমর্থিত অর্থ কেলেঙ্কারিতে জড়িত কোনো ব্যক্তির নাম যদি বেসিসের সঙ্গে জড়ায় তা হবে বেসিসের জন্য অত্যন্ত লজ্জার।

উল্লেখ্য, ৩১ মার্চ অনুষ্ঠেয় বেসিস নির্বাচনে এ্যাসোসিয়েট ক্যাটাগরি থেকে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ফাহিম মাসরুর। তিনি বাংলাদেশের একজন তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উদ্যোক্তা। বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) সাবেক সভাপতি। তবে ২০১২ সালে অর্থ কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে মাত্র ৮ মাসের মাথায় বেসিসের প্রেসিডেন্ট পদ থেকে পদত্যাগ করতে বাধ্য হন তিনি। বর্তামনে তিনি তারেক রহমানের সঙ্গে যুক্ত হয়ে তরুণদের সংগঠন বেসিসের বিভিন্ন সেক্টরে জামায়াত-বিএনপির লোক ঢুকিয়ে বর্তমান যুব সমাজকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেবার ষড়যন্ত্র করছেন।

Comments..
sidebar
আগের সংবাদ
পরের সংবাদ