জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় গেলে বাংলাদেশকে সাতটি প্রদেশে ভাগ করবে : এরশাদ

সাবেক প্রেসিডেন্ট জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, বাংলাদেশকে মালয়েশিয়ার মতো উন্নয়ন করতে হলে উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসতে হবে। প্রদেশ ছাড়া বাংলাদেশে কোনোভাবেই সম-উন্নয়ন সম্ভব নয়। জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় গেলে বাংলাদেশকে সাতটি প্রদেশে বিভক্ত গর্ব করার মতো উন্নয়ন করা হবে।

তিনি রোববার দুপুরে রংপুরের মিঠাপুকুরের জায়গীরঘাটে এসএ এগ্রো ফিড লিমিটেডের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনকালে প্রধান অতিথির বক্ততায় এসব কথা বলেন। উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এসএ গ্রুপের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক সালাহ উদ্দিন আহম্মেদের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টি কো-চেয়ারম্যান গোলাম মুহাম্মদ কাদের, মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা, প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়া উদ্দিন বাবলু, কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান রংপুর মহানগর সভাপতি ও সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, মহানগর জাতীয় পার্টির সেক্রেটারী এস এম ইয়াসির, জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম আহবায়ক হাজি আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ।

উদ্যেক্তারা জনিয়েছেন, মিঠাপুকুরের জায়গীরহাটে এসএ এগ্রো ফিডস লিমিটেডের সব কিছুই জার্মানি প্রযুক্তিতে নির্মাণ করা হবে। এছাড়াও এখানে গরু বাছুরেরও ফিড করা হবে। সব কিছুই হবে আন্তর্জাতিক মানের। এর মাধ্যমে সেবা নিশ্চিত করার পাশাপাশি এই অঞ্চলে একটি বিশাল কর্মসংস্থানেরও সুযোগ হবে।নয়াদিগন্ত

‘রাজনীতির গতি প্রকৃতির নিয়ন্ত্রণ বিএনপির হাতে নেই’………………………

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. একরাম উল্লাহ ডয়চে ভেলেকে বলেন, এই মুহুর্তে শাসক দলকে ছাপিয়ে জনগনকে উদ্বুদ্ধ করার শক্তি নেই বিএনপির৷

বাংলাদেশের অন্যতম বড় রাজনৈতিক দল বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া এখন কারাগারে৷ ইতিমধ্যে একটি মামলায় ৫ বছরের সাজাও হয়েছে৷ অপর একটি মামলার বিচার কাজ শেষ পর্যায়ে৷ সব মিলিয়ে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে এখন ৩৪টি মামলা৷

এর মধ্যে ৫টি মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানাও আছে৷ ফলে সহসাই খালেদা জিয়ার মুক্তি মিলবে এমনটি মনে হচ্ছে না৷ কোনো কোনো রাজনীতি বিশ্লেষক মনে করেন, খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে আওয়ামী লীগকে মাঠে পরাজিত করার শক্তি বিএনপির নেই৷ ফলে কিছু বিশৃঙ্খলা হলেও শেষ পর্যন্ত ক্ষমতাসীন দল যেভাবে চাইবে সেভাবেই নিয়ন্ত্রিত হবে সামনের সময়ে রাজনীতির গতি প্রকৃতি৷

‘এই মুহুর্তে শাসক দলকে বিট করে জনগনকে উদ্বুদ্ধ করার শক্তিও নেই’

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. একরাম উল্লাহ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে সামনে দিনে রাজনীতির গতি প্রকৃতির নিয়ন্ত্রণ এখন আর বিএনপির হাতে নেই৷ খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে তারেক রহমানকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে৷ তিনি খানিকটা স্বৈরতান্ত্রিক৷ ফলে অনেক সিনিয়র নেতা সরাসরি কিছু না বললেও তার সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ হবেন৷ তবে এই মুহুর্তে শাসক দলকে বিট করে জনগনকে উদ্বুদ্ধ করার শক্তিও তাদের নেই৷ সাধারণ মানুষের মধ্যে হয়ত কিছু ক্ষোভ আছে, কিন্তু সেটা রাজপথে নামার মতো নয়৷ আবার বিএনপি যেভাবে কর্মসূচী নিয়ে এগুচ্ছে তাতে জনগন উদ্বুর্দ্ধ হয়ে রাজপথে নামবে সেটাও মনে হচ্ছে না৷ ফলে শাসক দলের উপর চাপ সৃষ্টি করার মতো কোন অবস্থা এখন নেই৷ শাসক দল যেভাবে চাচ্ছে সেভাবেই তারা সামনের দিকে এগুচ্ছে৷ ফলে সামনে নতুন কিছু মিলবে তা মনে হয় না৷”

উচ্চ আদালতে খালেদা জিয়ার আইনজীবী প্যানেলের সদস্য এ্যাডভোকেট সগির আহমেদ লিয়ন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে বর্তমানে ৩৪টি মামলা বিচারাধীন৷” এখন যে মামলায় তিনি কারাগারে আছেন সেই মামলাটির নিম্ন আদালতের নথির অপেক্ষায় আছেন তারা৷

তিনি বলেন, ‘‘আমরা আশা করছি, আগামী দু’একদিনের মধ্যেই নিম্ন আদালতের রায়ের কপি উচ্চ আদালতে পৌঁছে যাবে।”

নথি আসার পরই আমরা রায় পাব বলে আশাবাদী৷ তিনি বলেন, ‘‘খালেদা জিয়ার আইনজীবী প্যানেল সবগুলো মামলা নিয়েই কাজ করছে৷ যে ৫টি মামলায় এখনো তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা আছে, সেগুলো নিয়েও আমরা কাজ করছি৷”

‘যে পাঁচ মামলায় তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা আছে, সেগুলো নিয়েও আমরা কাজ করছি’

এদিকে বিভিন্ন স্থানে জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখন যেভাবে ভোট চাইছেন, তা আইনের লঙ্ঘন বলে দাবি করেছেন সাবেক আইনমন্ত্রী ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ৷

প্রধানমন্ত্রীর খুলনা সফরের দিন শনিবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে বক্তব্যে এই দাবি করে তিন বলেন, ইতোপূর্বে প্রধানমন্ত্রী সিলেট ও রাজশাহী সফরের সময় জনসভায় নৌকার পক্ষে ভোট চাওয়া নিয়ে নির্বাচন কমিশনে নালিশ জানিয়েছিল বিএনপি৷ তবে ইসি বলছে, তফসিল ঘোষণার আগে তাদের করার কিছু নেই৷

মওদুদ বলেন যে, যেহেতু তারা জানেন, নির্বাচন কমিশনের বিধিতে আছে, তফসিল ঘোষণার পরে উন্নয়নের কোনো ওয়াদা করতে পারবেন না, সেজন্য তারা এই সময়ে সেই সুযোগ নিচ্ছেন৷ এটা অনৈতিক এবং বেআইনি৷

বিপরীতে বিএনপিকে সমাবেশই করতে না দেওয়ার অভিযোগও করেন মওদুদ৷ তিনি বলেন, ‘‘বিরোধী দলকে তালাবদ্ধ করে রাখা, গৃহবন্দি করে রাখা, জেলখানায় রাখা, কোনো সভা-সমাবেশ করতে না দেওয়া এমনকি ঘরোয়া বৈঠক করতেও না দেওয়া- এটা চলতে পারে না। বাংলাদেশের মানুষ আগামী নির্বাচনে এর জবাব দেবে৷”

ইসির ‘নিষ্ক্রিয়’ ভুমিকার সমালোচনা করে মওদুদ বলেন, ‘‘নির্বাচন কমিশন বলছে, তাদের কিছু করার নেই। তাদের (ইসি) তো শক্তি নাই, সাহস নাই৷ তারা তো নিরপেক্ষ না৷ তাহলে তো তারা সরকারের একটি তল্পিবাহক প্রতিষ্ঠান৷ সেজন্য তারা এই কথা বলেন৷ আজকে যদি ভারতে হত, তাহলে ভারতের চিফ ইলেকশন কমিশনার ব্যবস্থা নিতেন৷ ইসিকে বলব, হয় তাদেরকে বন্ধ করেন, না হয় আমাদেরও অনুমতি দেন, যাতে আমরাও ধানের শীষে ভোট চাইতে পারি৷”

Comments..
sidebar
আগের সংবাদ
পরের সংবাদ