সব শিক্ষামন্ত্রী ব্যর্থ, তবে নাহিদ ‘মহাব্যর্থ’

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদকে ‘মহাব্যর্থ’ আখ্যা দিয়ে তাকে সরে যাওয়া অথবা অপসারণের দাবি করেছেন বামপন্থী ছাত্র সংগঠনগুলোর মোর্চা প্রগতিশীল ছাত্রজোট।

রবিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন থেকে মিছিল নিয়ে সচিবালয়ের শিক্ষা মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্মসূচিতে সংগঠনটির নেতারা এই দাবি করেন।

তবে পুলিশের বাধায় ছাত্রজোট মন্ত্রণালয় ঘরাও করতে পারেনি। সচিবালয়ের সামনে পুলিশ ব্যারিকেড দিয়ে তাদের আটকে দেয়, পরে তারা সেখানেই সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে।

ধারাবাহিকভাবে প্রশ্ন ফাঁসের ঘটনায় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের পদত্যাগ দবি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্মসুচি পুলিশি বাধায় পণ্ড হয়েছে।

সমাবেশে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের সভাপতি গোলাম মোস্তফা বলেন, ‘ধারাবাহিকভাবে প্রশ্নপত্র ফাঁস হচ্ছে, যখন শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগের দাবি উঠছে তখন প্রধানমন্ত্রী বলছেন প্রশ্ন আগে থেকেই ফাঁস হচ্ছ। কিন্তু এটা কোন সমাধান হতে পারে না।’

‘বাংলাদেশের সব শিক্ষামন্ত্রী ব্যর্থ, তবে এই শিক্ষামন্ত্রী মহা ব্যর্থ।’

ছাত্র ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল কবির বলেন, ‘পাবলিক পরীক্ষায় সকল প্রশ্নপত্র ফাঁস, এই অবস্থা জতির ভবিষ্যত কী? শিক্ষামন্ত্রী দায় স্বীকার না করে প্রশ্নপত্র ফাঁসের ব্যাপারে সাফাই গাইছেন। পুরো মন্ত্রণালয় ব্যর্থ, এদের সবার বিচার হওয়া দরকার।’

বক্তারা বলেন, প্রশ্ন ফাঁসে জড়িত শিক্ষক, ছাত্রদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে কিন্তু যারা এর মূল তাদের ধরা হচ্ছে না। বাংলাদেশে শিক্ষা ব্যবস্থা আজ ধ্বংসের মুখে।

প্রশ্ন ফাঁস নতুন কোনো ঘটনা নয় বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে বক্তব্য দিয়েছেন তারও সমালোচনা করেন ছাত্র নেতারা। একজন বলেন, ‘একজন দায়িত্বশীল ব্যক্তি হয়েও প্রশ্ন ফাঁস নিয়ে এমন বক্তব্য দিতে পারেন না। তার এসব বক্তব্য কাণ্ডজ্ঞানহীন। কোন দায় না নিয়ে তিনি এমন বক্তব্য দিতে পারেন না।’

‘শিক্ষা মন্ত্রীর উদ্দেশে আমরা বলতে চাই, আপনাকে লজ্জা দেয়ার জন্য যা কিছু করা লাগে আমরা করব। আপনাকে পদত্যাগ করতে হবে। বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে যার বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর প্রয়োজন হয় আমরা দাঁড়াব।’

‘আগামী এইচএসসি পরীক্ষায় যদি প্রশ্ন ফাঁসের এই ধারা বজায় থাকে তাহলে আমরা জানি কীভাবে জোর করে পদত্যাগ করাতে হয়।’

প্রগতিশীল ছাত্রজোটের সমন্বয়ক গোলাম মোস্তফা, ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি জিলানী শুভ, সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী, ছাত্র ইউনিয়নের ঢাবি শাখার সভাপতি তুহিন কান্তি দাস, ছাত্রফ্রন্টের সভাপতি নাঈমা খালেদ মনিকা প্রমুখ মিছিলে অংশ নেন।

Comments..
sidebar
আগের সংবাদ
পরের সংবাদ