এরশাদের বিএনপিতে যোগ দেয়া নিয়ে যা বললেন নজরুল

সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রতিষ্ঠাতা হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ বিএনপিতে যোগ দিতে চাইলেই তাকে দলে নেব কিনা তা নিয়ে ভাবার বিষয় রয়েছে’ বলে মন্তব্য করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় প্রেসক্লাবে নার্সেস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ আয়োজিত এক নার্স সমাবেশে এ কথা বলেন তিনি।

সংগঠনটির সভাপতি জাহানার সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে বাংলাদেশ জনতা দলের চেয়ারম্যান মো: ফয়েজ চৌধুরী দাবি করেন, বিএনপির শীর্ষ স্থানীয় কয়েকজন নেতা আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে দল ছাড়বেন।

এ বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করে নজরুল ইসলাম খান বলেন, ‘এইচ এম এরশাদ সাহেবও বলেছিলেন। তবে তিনি সরাসরি কিছু বলেননি। এ ধরনের গুজব তো কতই হয়।

বিএনপির এই নেতা আরো বলেন, এরশাদ সাহেব বিএনপিতে যোগ দিতে চাইলেই নেব কিনা সেটা তো ভাবার বিষয়। তবে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বে দল আগের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী।

নজরুল ইসলাম বলেন, বিএনপির মতো এতো বড় রাজনৈতিক দলে কিছু দ্বিমত তো থাকতেই পারে। তবে দলের এ পরিস্থিতিতে কোথাও কোন দ্বন্দ্ব নেই।

‘বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নি:শর্ত মুক্তি এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি’ শীর্ষক এ সমাবেশে তিনি বলেন, চোরা বালি বলে একটা কথা আছে। কেউ যখন চোরা বালিতে পড়ে তখন সে যত নাড়াচরা করে, সে ততই ডুবে যায়। বর্তমান সরকার এখন চোরা বালিতে পড়েছে বলে মন্তব্য করেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিনে বাধা দিয়ে, তাকে জেলে থাকতে বাধ্য করে সরকার চোরা বালির আরো গভীরে গেছে।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিনের বিরোধীতা প্রসঙ্গে নজরুল ইসলাম বলেন, জামিনের বিরোধীতা করছেন কে- অ্যাটর্নি জেনারেল? তিনি আওয়ামী লীগের আইনজীবী নন। তিনি রাষ্ট্রের আইনজীবী। জনগণের ট্যাক্সের টাকায় তার বেতন হয়। অপরদিকে, দুদকের যিনি আইনজীবী তিনিও তো আওয়ামী লীগের আইনজীবী নন। দুদক রাষ্ট্রীয় একটি স্বাধীন প্রতিষ্ঠান। দুদকের আইনজীবীর বেতনও জনগণের ট্যাক্সের টাকায় হয়।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান সরকারের মন্ত্রী-এমপিদের উদ্দেশ্য করে বলেন, ২ কোটি টাকার জন্য বেগম খালেদা জিয়ার যদি ৫ বছরের জেল হয় তাহলে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটের জন্য কত হাজার বছর জেল হবে। আর যারা এসব লুটপাটের সাথে যুক্ত তারা এ সরকারকে ক্ষমতায় থাকতে সহযোগিতা করছে।

Comments..
sidebar
আগের সংবাদ
পরের সংবাদ